গৃহকর্মীকে নির্যাতনের অভিযোগে সাংবাদিক পীর হাবিবের বাসায় এলাকাবাসীর হামলা

ঢাকার উত্তরা ৪ নম্বর সেক্টরে বাংলাদেশ প্রতিদিনের নির্বাহী সম্পাদক পীর হাবিবুর রহমানের বাসায় হামলা করেছে স্থানীয় এলাকাবাসী। এ ঘটনায় পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়েছে স্থানীয়দের।পুলিশ বেশ কয়েক রাউন্ড টিয়ার শেলও ছুঁড়েছে। পুলিশ বলছে, বাসার গৃহকর্মীকে নির্যাতন করা হচ্ছে— এমন গুজব ছড়িয়ে পীর হাবিবের বাসায় হামলা করা হয়েছে। উত্তরা ৪ নম্বর সেক্টরের ৯ নম্বর সড়কে ৩০ নম্বর বাসার পঞ্চম তলায় থাকেন পীর হাবিব। বুধবার (১৪ অক্টোবর) সন্ধ্যার দিকে পুলিশের সঙ্গে স্থানীয় এলাকাবাসীর দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। ওই এলাকায় বাড়তি পুলিশ মোতায়েন করা হলেও থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে।

ঘটনাটি নিয়ে চ্যানেল ২৪ সংবাদ প্রচার করলেও কোনো এক অজ্ঞাত কারণে তাদের ইউটুব চ্যানেল থেকে সংবাদটি সরিয়ে নেয়া হয়েছে। তাছাড়া অন্যান্য গণমাধ্যমগুলোকেও সংবাদটি রহস্যজনকভাবে এড়িয়ে যেতে দেখা গিয়েছে। এ বিষয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পীর হাবিবকে বিষয়টি খোলাসা করার অনুরোধ করলেও তিনি বিষয়টি এড়িয়ে গিয়েছেন। তিনি বলেছেন, “খোঁজ নিয়ে জানার চেষ্টা করুন।”

এদিকে যুক্তরাষ্ট্র থেকে সাংবাদিক ইলিয়াস হোসেন আজ এক ভিডিওতে দাবি করেছেন গৃহকর্মীকে গর্ভবতী করেছেন পীর হাবিব এবং এর পর থেকে ঘটনা ধামাচাপা দেবার চেষ্টা করছেন। যদিও নাগরিক টিভির পক্ষ থেকে এব্যাপারে নিশ্চিত হওয়া সম্ভব হয় নি।

আমাদের ঢাকা প্রতিনিধি জানিয়েছেন গৃহকর্মীকে মারধরের গুজবে দুপুরের পর থেকে স্থানীয়রা সাংবাদিক পীর হাবিরের বাসাটি ঘেরাও করার চেষ্টা করে। সন্ধ্যার দিকে বাসাটিতে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে জানালার গ্লাস ভেঙে ফেলে তারা। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে হামলাকারীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল মারে। পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে।স্থানীয় এলাকাবাসী বলছেন, বুধবার দুপুরে সাংবাদিক পীর হাবিবের ফ্ল্যাটের জানালা দিয়ে এক গৃহকর্মী ‘বাঁচাও বাঁচাও’ বলে চিৎকার করছিলেন। এটা দেখে পরে স্থানীয়রা পুলিশকে খবর দেয়। পরে পুলিশ এসে ওই গৃহকর্মীকে উদ্ধার করে তার বাড়ি চাঁপাইনবাবগঞ্জে পাঠিয়ে দেয়।এদিকে পুলিশ দাবি করেছে, গৃহকর্মী ওই মেয়েটি বাড়ি ফেরার জন্য মিথ্যা কথা বলে ‘বাঁচাও বাঁচাও’ বলে চিৎকার করছিল। পরে তার সঙ্গে কথা বলে বাড়িতে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হয়।

Sharing is caring!