উন্নয়নের মহাসড়ক থেকে শ্রীলঙ্কার পথে বাংলাদেশ

মুদ্রাবাজার স্বাভাবিক রাখতে রিজার্ভ থেকে ডলার বিক্রি করেই চলেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। রোববারও ১ কোটি ৫০ লাখ ডলার (১৫ মিলিয়ন) বিক্রি করা হয়েছে।

সবমিলিয়ে চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরের সাড়ে ৯ মাসে (২০২১ সালের ১ জুলাই থেকে ১৭ এপ্রিল পর্যন্ত) ৪২০ কোটি (৪.২০ বিলিয়ন) ডলার বিক্রি করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এরপরও বাজারের অস্থিরতা কাটছে না। বেড়েই চলেছে যুক্তরাষ্ট্রের মুদ্রা ডলারের দর।

আন্তব্যাংক মুদ্রাবাজারে প্রতি ডলার ৮৬ টাকা ২০ পয়সায় বিক্রি হলেও ব্যাংকগুলো ৯২ টাকা দরে নগদ ডলার বিক্রি করছে।

রোববার রাষ্ট্রায়ত্ত সোনালী ও অগ্রণী ব্যাংক থেকে ১ ডলার কিনতে হাতে গুণে ৯২ টাকা দিতে হয়েছে। জনতা ব্যাংক ডলার বিক্রি করেছে ৯১ টাকা ৮০ পয়সায়। বেসরকারি ইস্টার্ন ব্যাংক বিক্রি করেছে ৯১ টাকায়। আর খোলাবাজারে ৯৩ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

আমদানি অস্বাভাবিক বেড়ে যাওয়ায় চাহিদা বাড়ায় বাজারে ডলারের সংকট দেখা দিয়েছে বলে জানিয়েছেন অর্থনীতিবিদ ও ব্যাংকাররা। আমদানির লাগাম টেনে ধরা ছাড়া ডলারের বাজার স্বাভাবিক হবে না বলে স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন তারা।

আন্তব্যাংক মুদ্রাবাজারে মাস খানেক ধরে ৮৬ টাকা ২০ পয়সায় বিক্রি হচ্ছে ডলার। ব্যাংকগুলো বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে যে দামে ডলার কেনে বা বিক্রি করে, তাকে আন্তব্যাংক মুদ্রাবাজার বলে।

এ হিসাবে আন্তব্যাংক রেটের চেয়ে ৫ টাকা ৮০ পয়সা বেশি দামে নগদ ডলার বিক্রি করছে সোনালী ও অগ্রণী ব্যাংক। অন্য ব্যাংকগুলো করছে ৫ থেকে সাড়ে ৫ টাকা বেশি দরে। অথচ এই ব্যবধান বা পার্থক্য এক-দেড় টাকার বেশি হওয়ার কথা নয়।

খোলাবাজারের ওপর কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কোনো হাত নেই। তবে ব্যাংকগুলো বেশি দামে ডলার বিক্রি করলে বাংলাদেশ ব্যাংক হস্তক্ষেপ করে থাকে। কেননা কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে আন্তব্যাংক দরে ডলার কিনে সেই ডলার বিক্রি করে থাকে ব্যাংকগুলো।

এর আগে দেখা গেছে, ব্যাংকগুলোর বিক্রি করা ডলারের দর আর আন্তব্যাংক রেটের মধ্যে বেশি ব্যবধান হলে বাংলাদেশ ব্যাংক সেই পার্থক্যের একটা সীমা নির্ধারণ করে দিত; সেটা এক থেকে দুই টাকার মধ্যে থাকত।

কিন্তু গত কয়েক মাস ধরে ব্যাংকগুলো আন্তব্যাংক রেটের চেয়ে অনেক বেশি দামে ডলার বিক্রি করলেও এখন পর্যন্ত কোনো হস্তক্ষেপ করেনি বাংলাদেশ ব্যাংক।

সে কারণেই দিন যত যাচ্ছে, ইচ্ছামতো যুক্তরাষ্ট্রের মুদ্রা ডলারের দাম বাড়িয়ে চলেছে ব্যাংকগুলো; কমছে টাকার মান। এ পরিস্থিতিতে আমদানি খরচ বেড়েই যাচ্ছে; বাড়ছে পণ্যের দাম। তবে রপ্তানিকারক ও প্রবাসীরা লাভবান হচ্ছেন।

Sharing is caring!