করোনার প্রভাবে বাংলাদেশের গণমাধ্যমের বেহাল দশা !

করোনা পরিস্থিতির মাঝে বেশ নাজুক অবস্থায় আছে বাংলাদেশের প্রায় তিরিশটি বেসরকারি টিভি চ্যানেল এবং পঞ্চাশটি দৈনিক পত্রিকা। করোনা পরিস্থিতি শুরু হওয়ার আগে থেকেই গণমাধ্যমের জন্য বরাদ্দকৃত বিজ্ঞাপনের প্রায় পঁচাত্তর ভাগ চলে যেত ইউটিউব এবং ফেসবুকে। সেই পরিমান বর্তমানে কমে দশ শতাংশে নেমে এসেছে। অনেক টিভি চ্যানেল এবং পত্রিকা কর্মচারীদের বেতন দিতে রীতিমতো হিমশিম খাচ্ছে। কিছু কিছু পত্রিকা এবং টিভি চ্যানেল কয়েক মাস পর পর বেতন দিতো , বর্তমানে সেটাও বন্ধ হয়ে গিয়েছে। তাছাড়া বেশ কিছু জনপ্রিয় টিভি চ্যানেল ইদানিং তাদের অনুষ্ঠান বিভাগের কার্যক্রম পুরোপুরি বন্ধ রেখেছে। আবার অনেকেই সংবাদ বিভাগে কর্মীদের ছাটাই না করে কয়েকদিন পর পর অফিস এ আসতে বলছে এবং এক তৃতীয়াংশ কর্মচারী দিয়ে দায়সারাভাবে সংবাদ পরিবেশন করছে। এক্ষেত্রে কর্মীদের অর্ধেক মাসের বেতন দেয়া হচ্ছে। পরিস্থিতি যদি এভাবে চলতে থাকে তাহলে অচিরেই বার্তা বিভাগ এবং অনুষ্ঠান বিভাগের বিপুল সংখ্যক কর্মচারী চাকরি হারাবেন। তাছাড়া সর্বাধিক প্রচারিত দৈনিক প্রথম আলোতেও করোনার কারণে ঘর থেকেই অনেকে রিপোর্ট করছেন। সরকারি এবং বেসরকারি বিজ্ঞাপন কমে যাওয়ায় প্রথম আলো পরিস্থিতি সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছে। সুতরাং বাকিদের অবস্থা কি হতে পারে সেটা সহজেই অনুমেয় ! যদি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সংবাদপত্র এবং বেসরকারি টিভি চ্যানেলগুলোকে রক্ষা করতে দ্রুত প্রণোদনার ব্যবস্থা না করেন, তাহলে এ পেশার সাথে জড়িত অনেককেই হয় পেশা ছেড়ে দিতে হবে , না হয় পথ এ বসতে হবে !

Sharing is caring!