জয়নাল-দিপালীর রক্ত ঢেকে দিয়েছে ‘ভালোবাসায়’

আজ গোটা দেশে পালিত হচ্ছে পহেলা বসন্ত ও ভালোবাসা দিবস। গোটা জাতি মেতে আছে আনন্দে। কিন্তু এই আন্দের নিচেই আমাদের এক রক্তাক্ত অধ্যায় আছে। যেই রক্তাক্ত অধ্যায়কে ইচ্ছে করেই ঢেকে দেয়া হয়েছে। ১৯৮৩ সালের ১৪ই ফেব্রুয়ারিতে পুলিশের গুলিতে জীবন দেয় জয়নাল-দিপালীসহ আরও অনেকে। যাদের বেশিরভাগেরই লাশ সেদিন গুম করা হয়েছিল।

১৯৮২ সালের ২৪ শে মার্চ লে. জেনারেল হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ এক সামরিক অভ্যুত্থানের মধ্য দিয়ে ক্ষমতা দখলের পরপরই তাকে ছাত্রদের প্রতিরোধের মুখে পড়তে হয়েছে। একইসাথে শুরু হয় ধরপাকড়। প্রথমদিনেই কলাভবনে সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে পোস্টার লাগাতে গিয়ে গ্রেফতার ও সাত বছরের সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডিত হন ছাত্রনেতা শিবলি কাইয়ুম,হাবিবুর রহমান ও আব্দুল আলী। সে সময়ের আন্দোলন গড়ে তোলা নেতাকর্মীরা বলছেন,স্বৈরাচার প্রথম আঘাতেই টের পায় এ লড়াই তার জন্য ঠিক হবে না।

সে সময় সামরিক সরকারের শিক্ষামন্ত্রী মজিদ খান ক্ষমতায় এসেই নতুন শিক্ষানীতি প্রণয়ন করেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বায়ত্তশাসন খর্ব ও রেজাল্ট খারাপ হলেও যারা ৫০% শিক্ষার ব্যয়ভার দিতে সমর্থ, তাদের উচ্চশিক্ষার সুযোগ দেওয়ার কথা বলা হয় এতে। এই নীতিতে দরিদ্ররা উচ্চশিক্ষা থেকে বঞ্চিত হতে পারে বলে ছাত্ররা এর প্রবল বিরোধিতা করে। ১৯৮২ সালের ১৭ ই সেপ্টেম্বর শিক্ষা দিবসে এই শিক্ষানীতি বাতিলের দাবিতে ছাত্র সংগঠনগুলো ঐকমত্যে পৌঁছে।

এরই ধারাবহিকতায় ১৯৮৩ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারির জন্ম। এদিন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ মজিদ খানের কুখ্যাত শিক্ষানীতি প্রত্যাহার, বন্দি মুক্তি ও গণতান্ত্রিক অধিকারের দাবি ও গণমুখী, বৈজ্ঞানিক ও অসাম্প্রদায়িক শিক্ষানীতির দাবিতে ছাত্র জমায়েত ডাকে।

হাজার হাজার শিক্ষার্থীদের শান্তিপূর্ণ মিছিলটি হাইকোর্টের গেটের সামনে ব্যারিকেডের সামনে বসে পড়ে এবং ছাত্রনেতারা তারের ওপর উঠে বক্তৃতা শুরু করে। এসময় পুলিশ বিনা উস্কানিতে তারের একপাশ সরিয়ে রায়ট কার ঢুকিয়ে দিয়ে রঙ্গিন গরম পানি ছিটাতে থাকে, বেধড়ক লাঠিচার্জ, ইট-পাটকেল ও বেপরোয়া গুলি ছুড়তে শুরু করে। গুলিবিদ্ধ হয় জয়নাল। এরপর গুলিবিদ্ধ জয়নালকে বেয়নেট দিয়ে খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে মারা হয়।

এসময় দিপালীও গুলিবিদ্ধ হন এবং পুলিশ তার লাশ গুম করে ফেলে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ নিহত ও আহতদের এ্যাম্বুলেন্স পাঠিয়ে নিয়ে আসতে চাইলে ঘটনাস্থলে ঢুকতে দেয়নি খুনি বাহিনী। কিছু না ঘটা সত্ত্বেও পুলিশ বাহিনীর সদস্যদের হত্যা করা হয়েছে, এমন অপপ্রচার চালিয়ে সামরিক সরকার উস্কে দেয় পুলিশকে। ঐদিন নিহত হয়েছিল জয়নাল, জাফর, কাঞ্চন, দীপালীসহ আরো অনেকে। সরকারী মতেই গ্রেফতার করা হয় ১,৩৩১ জন ছাত্র-জনতাকে, বাস্তবে এই সংখ্যা আরো বেশি ছিল। খোঁজ মেলেনি অনেকেরই।

এই ঘটনার জোয়ার লাগে চট্টগ্রাম শহরেও। মেডিক্যাল ও অন্যান্য কলেজের শিক্ষার্থীদের মিছিলে পুলিশ লাঠি চার্জ ও গুলি চালালে নিহত হয় কাঞ্চন। ছাত্রদের তিনটি মৌলিক দাবিতে ১৮ ফেব্রুয়ারি শিক্ষানীতি স্থগিত হয়ে যায়।

১৯৫২ সালের একুশে ফেব্রুয়ারির পর এটাই ছিল ইতিহাসে লিখে রাখার মতো ছাত্রবিক্ষোভের এবং নিপীড়নের ঘটনা। তা সত্তেও ইতিহাসের পাতা থেকে হারাতে বসা এই দিবসটি নিয়ে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক ও একসময়ের ছাত্রনেতা কাবেরী গায়েন বলেন,১৯৮৩ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারিতে যখন এই নৃশংস ঘটনা ঘটে, আমি তখন স্কুলে পড়ি। কিন্তু আমার বড় দুই ভাই এবং বড়বোন ছাত্র ইউনিয়নের রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন বলে ঘটনাটা আমার জানা।

১৯৮৮ সালের মাঝামাঝি যখনবিশ্ববিদ্যালয়ে যাই তখন জয়নাল, জাফর, কাঞ্চন, দিপালী সাহাদের নামে শ্লোগান শোনা যেতো। তখনও বাম সংগঠনগুলো ক্যাম্পাসে যথেষ্ঠ শক্তিশালী ও প্রভাবশালী ছিল।কিন্তু ততোদিনে অন্য এজেন্ডা ছাত্ররাজনীতিতে স্থান করে নিয়েছে। তিনি বলেন, হাজার হাজার ছাত্রছাত্রীকে গ্রেফতার করার,মেরে ফেলার,গুম করার এই বিভীষিকাময় দিনগুলোর কথা অবশ্য আমরা ক্যাম্পাসে থাকতে থাকতেই ফিঁকে হয়ে উঠছিলো। বিশেষ করে এরশাদের পতনের পরে যখন গণমাধ্যমের সংখ্যা বাড়লো, কিন্তু দেশের রাজনৈতিক প্রতিরোধ ইতিহাসের ওপর করপোরেট ঔদাসীন্য একুশে ফেব্রুয়ারির পরে ছাত্র-শিক্ষকের এহেনো তাৎপর্যময় বিশাল আন্দোলনকে বিস্মৃতির অতলে ঢেকে দিলো।

বিশ্বায়নের যুগে সাংস্কৃতিক আগ্রাসনের হাত থেকে আর কিছুকে রক্ষা করা যাক না যাক ১৪ ফেব্রুয়ারির স্মৃতিচারণাটা প্রজন্মের স্বার্থেই জরুরি ছিল। কিন্তু গত শতকের শেষ দশকে এসে ভালোবাসা দিবসের আমদানি ও তার সফল বাজারজাতকরণ সবাইকে স্বৈরাচার প্রতিরোধ দিবসের নাম ভুলিয়ে দিতে সক্ষম হয়েছে। আজ খুব সামান্যই প্রচারে আসে দিবসটির কথা। তবে একটা বিষয় মনে রাখা সবচেয়ে জরুরি- ভাষা ও ভালোবাসা এ দুটি বিষয়ই সহজাত।

Sharing is caring!