বিরোধীদের পেতে ‘মরিয়া’ সার্চ কমিটি

প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও অন্যান্য পদে ‘যোগ্য; লোক খুঁজছে সার্চ কমিটি। কিন্তু এই সার্চ কমিটির উপর ভরসা দেখায়নি বিএনপিসহ ১৩টি দল। সার্চ কমিটির কাছে দশ জন ব্যক্তির নাম দেয়ার আহ্বান প্রত্যাখ্যান করেছে এই দলগুলি। কিন্তু সার্চ কমিটি মরিয়া হয়ে উঠেছে এদের থেকে নাম নেয়ার জন্য। এজন্য তারা দুই দফা সময়ও বাড়িয়েছে। কিন্তু বিরোধী দলগুলো অনড়। তারা এই প্রক্রিয়ায় যুক্ত হতে চাইছে না।

আগামী ২৪শে ফেব্রুয়ারির মধ্যে সার্চ কমিটিকে ১০ জনের চূড়ান্ত তালিকা জমা দিতে হবে। সবার কাছে গ্রহণযোগ্য এবং সব দল আস্থা রাখতে পারে- এমন ব্যক্তিদের নাম চূড়ান্ত করতে প্রক্রিয়ায় সব দলকে রাখার চেষ্টা করছে কমিটি।

দলগুলো বলছে, নির্বাচন কমিশন গঠনের চেয়ে নির্বাচন প্রক্রিয়ার বিষয়টি আগে সুরাহা হওয়া উচিত। দলগুলোর এমন মনোভাবের মধ্যেও দরজা খোলা রেখেছে সার্চ কমিটি। তারা শেষ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। এ জন্য গতকাল নতুন করে বলা হয়েছে, তালিকা চূড়ান্তের আগ পর্যন্ত দলগুলো চাইলে নাম জমা দিতে পারবে।

সর্বশেষ গতকাল আরও ৪ জন সিনিয়র সাংবাদিকের সঙ্গে বৈঠক করেছে সার্চ কমিটি। বৈঠকের পর সিনিয়র সাংবাদিক মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল জানিয়েছেন, সার্চ কমিটি নাম চূড়ান্ত করতে আরও সময় নিচ্ছে। চূড়ান্ত তালিকা জমা দেয়ার আগ পর্যন্ত যেসব দল নাম প্রস্তাব করেনি তারা নাম প্রস্তাব করতে পারবে।

সার্চ কমিটি ১০ই ফেব্রুয়ারির মধ্যে নাম জমা দিতে নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলগুলোকে চিঠি দেয়। নির্ধারিত সময়ে অনেক দল নাম জমা দিলেও বিএনপি সহ ১৩ দলের তরফে কোনো তালিকা জমা দেয়া হয়নি। পরে তালিকা দিতে আরও একদিন সময় বাড়ায় সার্চ কমিটি। বর্ধিত সময়েও আর কোনো নাম প্রস্তাব আসেনি। নতুন করে সময় বাড়িয়ে দেয়া হলেও বিএনপি’র পক্ষ থেকে বলা হয় সার্চ কমিটিতে নাম না দেয়ার অবস্থানে তারা অনড়। নতুন করে সময় বাড়ালেও নাম দেয়ার প্রশ্নই আসে না।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে সোমবার ৩২২ জনের নাম প্রকাশ করা হয়েছে। রাজনৈতিক দল, সংগঠন ও ব্যক্তি পর্যায়ে তাদের নাম জমা দেয়া হয়েছিল সার্চ কমিটিতে। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, নির্বাচন কমিশন (ইসি) গঠনে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের কাছ থেকে মোট ১৩৬ জনের নাম প্রস্তাব করা হয়েছে। পেশাজীবী সংগঠন দিয়েছে ৪০ জনের নাম। নির্ধারিত ই-মেইলে এসেছে আরও ৯৯ জনের নাম, আর ব্যক্তিগত পর্যায়ে নাম প্রস্তাব করেছেন ৩৪ জন। এ ছাড়া বিশিষ্ট নাগরিকদের সঙ্গে মতবিনিময়ের সময়ও বেশ কিছু নামের প্রস্তাব পেয়েছে অনুসন্ধান কমিটি। অনুসন্ধান কমিটির প্রকাশ করা তালিকায় ৫৪ জন শিক্ষক ও শিক্ষাবিদের নাম রয়েছে। তালিকায় ৯৫ জন সাবেক আমলার নাম রয়েছে। এছাড়া সাবেক একাধিক প্রধান বিচারপতির নাম যেমন রয়েছে, তেমনি অধস্তন আদালতের সাবেক বিচারকেরাও রয়েছেন। সাবেক বিচারপতি, বিচারক ও আইনজীবীসহ বিচারাঙ্গনের ৬৭ জনের নাম রয়েছে তালিকায়। সেনাপ্রধানসহ সশস্ত্র বাহিনীর সাবেক ২৮ জন কর্মকর্তার নাম রয়েছে। অন্তত ১০ জন সাবেক পুলিশ কর্মকর্তার নাম রয়েছে প্রকাশিত তালিকায়। এ ছাড়া তত্ত্বাবধায়ক সরকারের ৪ সাবেক উপদেষ্টার নামও তালিকায় রয়েছে।

Sharing is caring!