বাংলাদেশের বিদেশি ঋণ প্রায় ১ লাখ কোটি টাকা

গত এক দশকে দেশে অনেক বড় বড় প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে। এসব প্রকল্পের জন্য বিপুল পরিমাণ বিদেশী ঋণ নিয়েছে সরকার। একই সঙ্গে বেড়েছে এ ঋণ পরিশোধে ব্যয়কৃত অর্থের পরিমাণও। বাংলাদেশ ব্যাংক ও অর্থ মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৪-১৫ অর্থবছরে বার্ষিক নিট বিদেশী ঋণ গ্রহণের (গৃহীত ঋণ থেকে পরিশোধ বাদ দিয়ে) পরিমাণ ছিল ৪ হাজার ৯১০ কোটি টাকা। চলতি অর্থবছরের (২০২১-২২) বাজেটে বার্ষিক নিট বিদেশী ঋণ গ্রহণের প্রাক্কলন রয়েছে ৯৭ হাজার ৭৪০ কোটি টাকার। গত অর্থবছরেও এর পরিমাণ ছিল ৬৮ হাজার ৪১০ কোটি।

বিদেশী ঋণ ব্যবহার সবচেয়ে বেশি হয় মেগা প্রকল্পগুলোয়। দেশে এখন এমন অনেক প্রকল্প বাস্তবায়নাধীন রয়েছে। প্রকল্পগুলো হাতে নেয়ায় প্রতি বছরই বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) আকার বাড়ছে। একই সঙ্গে বাড়ছে বিদেশী ঋণের পরিমাণও। বিভিন্ন দ্বিপক্ষীয়, বহুপক্ষীয় ও দাতা সংস্থার ঋণ, সাপ্লায়ার্স ক্রেডিট ও লাইন অব ক্রেডিটের আওতায় এসব ঋণ বাড়ছে।

পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ২০১৫-১৬ অর্থবছরে নিট বিদেশী ঋণ গ্রহণের পরিমাণ ছিল ১২ হাজার ৮৭০ কোটি টাকা। ২০১৭-১৮-অর্থবছরে নেয়া হয় ২৫ হাজার ৬২০ কোটি ও ২০২০-২১ অর্থবছরে ৬৮ হাজার ৪১০ কোটি টাকা। চলতি অর্থবছরের বাজেটে এর পরিমাণ ধরা হয়েছে ৯৭ হাজার ৭৪০ কোটি টাকা। এ সময়ের ঋণ পরিশোধে ব্যয়কৃত অর্থের পরিমাণও বেড়েছে। ২০১৪-১৫ অর্থবছরেও বাংলাদেশের ঋণ পরিশোধের পরিমাণ ছিল ৭ হাজার ৮০ কোটি টাকা। চলতি অর্থবছর তা বেড়ে দাঁড়াবে ১৪ হাজার ৪৫০ কোটি টাকায়।

নিট বিদেশী ঋণের এ বড় উল্লম্ফনকে দেশের অর্থনীতির জন্য ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে দেখছেন বিশেষজ্ঞরা। তাদের ভাষ্যমতে, ঋণ মাত্রা ছাড়ালে চাপ পড়ে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ও বিনিময়হারের ওপর। বাংলাদেশে এখন বিনিয়োগ চাহিদা বাড়ছে। এর সঙ্গে বাড়ছে বৈদেশিক মুদ্রার চাহিদাও। বিপুল পরিমাণ বিদেশী ঋণের সুদসহ আসল পরিশোধ করতে গিয়ে ভবিষ্যতে এ চাহিদা মারাত্মক চাপে রূপ নেয়ার ব্যাপক আশঙ্কা রয়েছে।

বিষয়টির উদাহরণ টানতে গিয়ে পর্যবেক্ষকরা বলছেন, শ্রীলংকায় চলমান ইতিহাসের ভয়াবহতম অর্থনৈতিক সংকটের মূলেও রয়েছে বিপুল পরিমাণ বিদেশী ঋণ। চীন, জাপানসহ বিভিন্ন দেশের কাছ থেকে প্রচুর পরিমাণে ঋণ নিয়েছে দেশটি। এসব ঋণের অর্থে বাস্তবায়ন হয়েছে একের পর এক মেগা প্রকল্প। এ ঋণ ও ঋণের সুদের বোঝা টানতে গিয়ে চাপ পড়েছে দেশটির রিজার্ভে। বিশ্বের অনেক দেশই কভিডের ধাক্কা কাটিয়ে উঠতে পারলেও শ্রীলংকা পারেনি। উল্টো বৈদেশিক মুদ্রাপ্রবাহ হারিয়ে ইতিহাসের ভয়াবহতম সংকটে পড়েছে দেশটি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে পরিকল্পনা কমিশনের সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের সদস্য (সচিব) ড. মো. কাউসার আহাম্মদ বলেন, আমাদের প্রকল্প সংখ্যা আগের চেয়ে অনেক বেশি। বিদেশী সহায়তার প্রতিশ্রুতি এখন প্রায় ৪০ বিলিয়ন ডলারের। এগুলো পাইপলাইনে আছে। এখন পর্যন্ত নিতেই পারিনি। বাংলাদেশ এখন বিদেশী সাহায্যনির্ভর নয়। এখন আমরা ঋণ নিচ্ছি। আগে প্রকল্প ছিল ছোট আকারের। ঋণও ছিল কম। এখন প্রকল্প বড়। ফলে ঋণের আকারও বড়। ঋণ বাড়ার পাশাপাশি বিনিয়োগ যেমন বাড়বে আবার লভ্যাংশও বাড়বে। দিন শেষে জিডিপি প্রবৃদ্ধি বেশি হবে। জিডিপি প্রবৃদ্ধির সুবিধা যেন সবার কাছে পৌঁছায় সেটার ব্যবস্থাও সরকার নিচ্ছে। ঋণ যখন বেশি, তখন এর সুফলও বেশি। চলমান সব মেগা প্রকল্পের সুফলও অনেক বেশি। এটি খুব ভালো একটি দিক। তবে এ বিষয়ে অবশ্যই সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। সরকার এ বিষয়ে নিষ্ঠাবান। বর্তমানে সমস্যার মধ্যে পড়েছে এমন কোনো দেশের মতো অবস্থা বাংলাদেশের যেন না হয়, সে বিষয়ে সরকার সচেষ্ট রয়েছে।

টাকার অংকে দেশের সবচেয়ে বড় প্রকল্প রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ। রাশিয়ার অর্থনৈতিক ও কারিগরি সহায়তায় বিদ্যুৎকেন্দ্রটি তৈরি করতে খরচ হচ্ছে ১ লাখ ১৩ হাজার ৯২ কোটি টাকা। এর মধ্যে ৯১ হাজার ৪০ কোটি টাকা ঋণ হিসেবে দিচ্ছে রাশিয়া। বাকি টাকার জোগান দিচ্ছে বাংলাদেশ সরকার।

কক্সবাজারের মাতারবাড়ীতে নির্মাণ হচ্ছে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র। ৫১ হাজার ৮৫৫ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মীয়মাণ এ বিদ্যুৎকেন্দ্রে জাপান আন্তর্জাতিক সহযোগিতা সংস্থার (জাইকা) ঋণের পরিমাণ ৪৩ হাজার ৯২১ কোটি টাকা।

চীনের ঋণে ঢাকা থেকে পদ্মা সেতু হয়ে যশোর পর্যন্ত প্রায় ১৭০ কিলোমিটার নতুন রেলপথ নির্মাণ করা হচ্ছে। নির্মাণ ব্যয় ৩৯ হাজার ২৪৬ কোটি টাকা। এর মধ্যে চীনের ঋণ ২১ হাজার ৩৬ কোটি টাকা। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে ঢাকার সঙ্গে দেশের দক্ষিণাঞ্চলের জেলাগুলোয় সরাসরি রেল যোগাযোগ প্রতিষ্ঠিত হবে।

যানজট কমাতে ঢাকায় তৈরি হচ্ছে ছয়টি মেট্রোরেল লাইন। উত্তরা থেকে মতিঝিল পর্যন্ত প্রথম লাইনটি (এমআরটি লাইন-৬) তৈরিতে ঋণ দিচ্ছে জাইকা। লাইনটি নির্মাণে খরচ হচ্ছে ২১ হাজার ৯৮৫ কোটি টাকা। এর মধ্যে ১৬ হাজার ৫৯৫ কোটি টাকা জাইকার ঋণ।

চট্টগ্রামের দোহাজারী থেকে কক্সবাজার পর্যন্ত নতুন ডুয়াল গেজ রেলপথ তৈরি করা হচ্ছে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) ঋণে। এখন পর্যন্ত প্রকল্পটির নির্মাণ ব্যয় ১৮ হাজার ৩৪ কোটি টাকা। এর মধ্যে ১৩ হাজার ১১৫ কোটি টাকা এডিবির ঋণ। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে ঢাকা থেকে কক্সবাজার পর্যন্ত ট্রেন পরিচালনা করা সম্ভব হবে।

জাইকার ঋণে যমুনা নদীতে বঙ্গবন্ধু সেতুর সমান্তরালে রেলওয়ের জন্য নির্মাণ করা হচ্ছে আলাদা সেতু। রেলসেতুটি তৈরি করতে খরচ হচ্ছে ১৬ হাজার ৭৮০ কোটি টাকা। এর মধ্যে জাইকার ঋণ ১২ হাজার ১৪৯ কোটি টাকা।

টাঙ্গাইলের এলেঙ্গা থেকে রংপুর পর্যন্ত ১৯০ কিলোমিটার মহাসড়কটি ধীরগতির যানবাহনের জন্য আলাদা লেনসহ চার লেনে উন্নীত করা হচ্ছে এডিবির ঋণে। সড়কটি তৈরি করতে খরচ হচ্ছে ১৬ হাজার ৬৬২ কোটি টাকা। এর মধ্যে ঋণের পরিমাণ ১১ হাজার ৬২৫ কোটি টাকা।

দেশে বিভিন্ন মেগা প্রকল্প বাস্তবায়নকালে দেখা যাচ্ছে, প্রায়ই এগুলোর নির্মাণকাজ হচ্ছে ধীরগতিতে। এতে জনভোগান্তির পাশাপাশি বেড়ে যাচ্ছে প্রকল্প বাস্তবায়ন ব্যয়ও, যা বিদেশী ঋণের ওপর নির্ভরতাকে আরো বাড়িয়ে তুলছে।

Sharing is caring!