মতামত : বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণের অভিযোগ এ যুগের শ্রেষ্ঠ মিথ্যাচার, যা প্রকৃত ধর্ষিতাদের ন্যায়বিচার পাবার অধিকারকে প্রশ্নবিদ্ধ করে।

লিখেছেন মুনতাসির মাহমুদ
মুনতাসির মাহমুদ
একেবারে খোলাখুলি বলি, প্রেমের সম্পর্কে থাকা অবস্থায় পরস্পর সম্মতিতে শারীরিক সম্পর্ক করা ইসলামী দৃষ্টিতে অনৈতিক এবং উভয়েই অপরাধী, সেটা কোনভাবেই ধর্ষণ নয়। এটাকে ধর্ষণ বলা মানে স্পষ্ট ইসলামের বিরোধিতা করা, অর্থাৎ এটাই স্বীকৃতি দেয়া যে, চাইলে তুমি বিয়ের আগেই প্রেম করে সেক্স করতে পারো। বিয়ে না করলে ধর্ষণ মামলা তো আছেই!
একটু ঠান্ডা মাথায় ভাবুন, সেচ্ছায় প্রেম করে দেহ বিলিয়ে দেয়াকে আপনি ভয়াবহ ভাবে হাত-পা বেধে গণধর্ষণের সাথে মিলাচ্ছেন?? অসহায় তরুণীকে ধর্ষণ করা আর সেচ্ছায় দেহ বিলানো এক?? এই ২টাকে এক করে দেখা হল জঘন্যতম অন্যায়, এর মাধ্যমে প্রকৃত ধর্ষিতাদের চূড়ান্ত অপমান করে ইসলাম বিরোধী এজেন্ডা বাস্তবায়ন করছে কিছু অমানুষ।
ধরুন, কেউ আপনাকে বিয়ের লোভ দেখায়া সেক্স করতে বললো, আপনি করে ফেলবেন?? মানে এতই সস্তা?? বিয়ের লোভে নিজ ইচ্ছায় দেহ বিলিয়ে দিলেন, তারপর যখন ব্রেক আপ হয়ে যাবে তখন সেই পারস্পরিক সম্মতিতে করা সম্পর্কই হয়ে যাবে ধর্ষণ! বাহ, আইনের সর্বোচ্চ অপব্যবহার, তাই নয় কী??
এই আইন মানবতা বিরোধী।
এই আইন ইসলাম বিরোধী।
আর যখন এই আইনের পক্ষে দাড়ায়া ছাত্রলীগের গুন্ডারা অপরাজনীতি করার চেষ্টা করে, তখন কারোই বুঝতে বাকি থাকে না যে, আসল উদ্দেশ্য কী!
ভিপি নুর বাংলাদেশের গণ-মানুষের নেতা। নুরকে জড়িয়ে এসব ষড়যন্ত্র জনগণ মেনে নিবে না। এই মিথ্যা মামলার কারণে যথেষ্ট হেনস্তা করেছেন আমাদের। আমি সহ বহু নেতাকর্মী আহত হয়েছে, রক্ত ঝড়িয়েছে। প্রয়োজনে আরো রক্ত দিবো, তবুও অন্যায়ের কাছে মাথা নত করবো না.. এটা স্পষ্ট কথা।

- ৮ অক্টোবর, ২০২০।
বিঃদ্রঃ শুধুমাত্র কোন নির্দিষ্ট মামলা নিয়ে এই লেখা নয়। সেই মামলায় অভিযুক্ত কেউ শারীরিক সম্পর্ক করেছিল কি না, তাও আমি জানি না। আমার প্রশ্ন এতটুকুই, যদি বিবাহ বহির্ভূত শারীরিক সম্পর্ক হয়ই, তাতে দোষী হলে, ১ জন নয়, উভয়েই হবে। এবং তা নিয়ে রাজনীতি করার অর্থঃ প্রকৃত ধর্ষিতাদের প্রশ্নবিদ্ধ করা। ধন্যবাদ।

লেখক: যুগ্ন আহ্বায়ক, কোটা সংস্কার আন্দোলন

Sharing is caring!