বিএনপির ইফতারে হামলা করতে গিয়ে পুলিশের পিটুনি খেলেন আ. লীগ

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে বিএনপির আয়োজিত ইফতার অনুষ্ঠানে হামলার অভিযোগ উঠেছে আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে। এ সময় পুলিশের পিটুনির শিকার হয়েছেন তারা।

শনিবার (২৩ এপ্রিল) বিকেলে ঈশ্বরগঞ্জ পৌর এলাকার চরনিখলা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে আয়োজিত ইফতার অনুষ্ঠানে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশের পিটুনিতে ছত্রভঙ্গ হয়ে যায় হামলাকারীরা।

জানা গেছে, চরনিখলা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ইফতার মাহফিলের আয়োজন করে উপজেলা বিএনপি। বিকেলে পৌর সদর মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সামনের এলাকা থেকে যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, ছাত্রলীগের একটি অংশ, মৎস্যজীবী লীগসহ সহযোগী অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা মিছিল বের করে। দেশীয় অস্ত্র নিয়ে মিছিলটি চরনিখলা উচ্চ বিদ্যালয়ে গিয়ে একদফা ভাঙচুর চালায় ও ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে।

দ্বিতীয় দফা হামলা করতে গিয়ে পুলিশি বাঁধার মুখে পড়ে আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা। ওই সময় পুলিশের পিটুনিতে কয়েকজন আহত হন। আওয়ামী লীগ কর্মীদের হামলায় বিএনপিরও কয়েকজন আহত হন। ভাঙচুর করা হয়েছে পৌর শহরের কাঠগোলাস্থ বিএনপির সাধারণ সম্পাদকের ব্যক্তিগত কার্যালয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক সামি উসমান গণি জানান, বিএনপির অনুষ্ঠানে সরকার বিরোধী মন্তব্য করায় তারা এগিয়ে গেলে পুলিশের আক্রমণের শিকার হন তারা। বিএনপির পক্ষ হয়ে পুলিশ তাদের নেতাকর্মীদের আক্রমণ করে।

উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক হারুন অর রশিদ বলেন, স্কুল কর্তৃপক্ষের কাছে অনুমতি নিয়ে ইফতারের আয়োজন করা হয়। এই কাজটি করেছে যারা তারা আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী অংশ।

ঈশ্বরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবদুল কাদের মিয়া বলেন, হামলার খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

Sharing is caring!