পানি চাইলেও খেতে দেয়নি পুলিশ

জেলার ভোলাহাটে গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে আটকের পর সানাউল হক বিশ্বাস নামে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। পরিবারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, পুলিশের অমানবিক নির্যাতনেই মারা গেছেন সানাউল। এমনকি পানি খেতে চাইলেও পানি না দিয়ে, বরং তাকে দেখিয়ে দেখিয়ে পুলিশ সদস্যরা পানি পান করেছেন বলেও অভিযোগ তাদের।

তবে পুলিশ অভিযোগ অস্বীকার করে বলছে, হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে আসামি সানাউলের মৃত্যু হয়েছে। সানাউল হক বিশ্বাস ভোলাহাট উপজেলার চাঁন শিকারী গ্রামের মৃত মুর্শেদ বিশ্বাসের ছেলে।

সানাউলের ভাই মাসুদ রানা বিশ্বাস অভিযোগ করে বলেন, বৃহস্পতিবার রাত ৯টার দিকে সানাউল বাড়ি থেকে পাশের একটি দোকানে যাচ্ছিলেন। এসময় গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল তাকে আটক করে। আটকের পর থানায় নিয়ে তাকে ব্যাপক নির্যাতন করা হয়। এই নির্যাতনের কারণেই তার মৃত্যু হয়েছে। নির্যাতনের পরে তার ভাই পানি খেতে চাইলেও পুলিশ তা দেয়নি বরং পুলিশ সানাউলকে পানি না দিয়ে তাকে দেখিয়ে নিজেরা পানি খেয়েছেন।

তিনি আরও বলেন, ‘মাদক ব্যবসায়ী হিসেবে আমার ভাইকে আটক করা হলেও তিনি মাদক ব্যবসায়ী ছিলেন না।’

চাঁপাইনবাবগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহবুব আলম খান জানান, রাতে একটি বাগানে মাদক সেবনের সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পালানোর চেষ্টা করে সানাউল। এসময় পুলিশ তাকে আটক করে। আটকের পর সানাউল বুকে ব্যথা অনুভব করলে তাকে প্রথমে ভোলাহাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়।

পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাত সাড়ে ১১টার দিকে চাঁপাইনবাবগঞ্জ আধুনিক সদর হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত সাড়ে ১২টার দিকে মারা যান তিনি।

মাহবুব আলম খান আরও বলেন, ‘সানাউল একজন মাদক ব্যবসায়ী। গত ১৩ এপ্রিল তার বাড়িতে অভিযান চালিয়ে ১৬০ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করে পুলিশ। ওইদিন তিনি বাড়িতে ছিলেন না। ওই মামলাতেই গতরাতে পুলিশ তাকে আটক করতে গিয়েছিল।’ কোনো ধরণের নির্যাতনের বিষয়টিও তিনি অস্বীকার করেন।

Sharing is caring!