১লা মার্চ খুলছে প্রাথমিক বিদ্যালয়

করোনার নতুন ধরন ওমিক্রনের সংক্রমণের কারণে বন্ধ থাকা সকল প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের শারীরিক উপস্থিতে শিক্ষা কার্যক্রম শুরুর তারিখ চূড়ান্ত।
প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আগামী পহেলা মার্চ থেকে দেশের সকল প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ক্লাস শুরু হবে। শুক্রবার এ তথ্য নিশ্চিত করেছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। করোনাভাইরাস সংক্রান্ত জাতীয় পরামর্শক কমিটির সঙ্গে আলোচনা করেই এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এর ফলে, করোনার কারণে বন্ধ থাকা সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত চুড়ান্ত হল। তবে, শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

এর আগে, গতকাল মাধ্যমিক, উচ্চ মাধ্যমিক ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলো খুলে দেয়ার সিদ্ধান্তের কথা জানান শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। সচিবালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী জানান, আগামী ২২শে ফেব্রুয়ারি থেকে কঠোর স্বাস্থ্যবিধি মেনে মাধ্যমিক, উচ্চ মাধ্যমিক এবং বিশ্ববিদ্যালয়ে শারীরিক উপস্থিতিতে শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হবে। তিনি আরও জানান, প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পাঠদান শুরুর বিষয়ে দুই সপ্তাহ পর সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। তবে, তার আগেই চূড়ান্ত তারিখ ঘোষণা করল প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।

শিক্ষামন্ত্রী আরও জানান, কারিগরি পরামর্শক কমিটির পরামর্শ এবং প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা পেয়েই শিক্ষা মন্ত্রণালয় এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে। শিক্ষার্থীদের টিকা দেয়ার বিষয়ে মন্ত্রী জানান, এখন পর্যন্ত এক কোটি ২৬ লাখ ৫৭ হাজার শিক্ষার্থীকে প্রথম ডোজ এবং ৩৪ লাখ ৪০ হাজার ৪৪৮ জনকে দ্বিতীয় ডোজ দেয়া হয়েছে। ২১শে ফেব্রুয়ারীর মধ্যেই বাকি শিক্ষার্থীদের দ্বিতীয় ডোজ দেয়া হবে।

করোনার নতুন ধরন ওমিক্রনের সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় গত ২১শে জানুয়ারি থেকে ৬ই ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সব স্কুল, কলেজ ও সমপর্যায়ের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করে, স্বশরীরে পাঠদান বন্ধ রাখা হয়। এ সময়ের মধ্যে শিক্ষার্থীদের টিকাদান কার্যক্রমের ওপর বেশি জোর দেওয়া হয়। এরপর সংক্রমণ পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়ায় আবার ২১শে ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত দুই সপ্তাহ বন্ধ ঘোষণা করা হয়।

এরও আগে, ২০২০ সালের ৮ই মার্চ দেশে করোনা রোগী শনাক্ত হওয়ার পর প্রথম দফায় ১৬ই মার্চ থেকে দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করে সরকার। দীর্ঘ ১৮ মাস বন্ধ থাকার পর সীমিত পরিসরে সশরীরে শ্রেণি পাঠদান শুরু হয় গত বছরের ১২ই সেপ্টেম্বর। কিন্তু হঠাৎ করে করোনা নতুন ধরন ওমিক্রনের সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় এ বছর গত ২২শে জানুয়ারি থেকে দ্বিতীয় দফায় সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়।

Sharing is caring!