নাগরিকের সাথে একান্ত সাক্ষাৎকারে বিশ্বনন্দিত কানাডিয়ান কমেডিয়ান রাসেল পিটার্স

নাগরিক টিভির বার্তা প্রধান নাজমুস সাকিবের সাথে আলাপচারিতায় রাসেল পিটার্স

নাজমুস সাকিব: এটা অত্যন্ত আনন্দের বিষয় বিশ্বের কমেডি অঙ্গনে অনন্য প্রতিমূর্তি রাসেল পিটার্সকে আজ আমাদের মাঝে পেয়েছি। তো আমার প্রথম প্রশ্ন হলো: পাঁচ বছর আগে কিংবদন্তি ল্যারি কিংয়ের সাথে এক সাক্ষাৎকারে আপনাকে প্রশ্ন করা হয়েছিল আপনি কেন আমেরিকার স্ট্যান্ড আপ কমেডি অঙ্গন দখলে নিতে পারেন নি। ২০২০ সালে এসে এখন আমরা দেখতে পাচ্ছি আপনি প্রকৃতপক্ষেই আমেরিকা দখলে নিয়েছেন বিশেষ করে যে কথা না বললেই নয়, আপনার আজকের অনুষ্ঠানে আমি অংশ নিয়েছিলাম এবং দর্শকদের কাছ থেকে আপনি যেমন সাড়া পেয়েছেন তা ছিল আকর্ষণীয়। কেন এতো সময় লাগলো (আমেরিকার দর্শকদের কাছে পৌঁছাতে) কারণ আপনি তো কমেডি করে আসছেন প্রায় দীর্ঘ ৩১ বছর যাবৎ!  


রাসেল পিটার্স: আমি আসলে জানি না কেন।আমি কখনো ওভাবে পরিমাপ করি নি: দেখুন আমার সফলতা সেটা নয় যে তারা আমাকে চিনলো কি চিনলো না, আমার কাছে সফলতা হলো এমন কাজ করতে পারা যেটা আমাকে আনন্দ দিবে এবং আমাকে অন্যের জন্য কাজ করতে হবে না। এটাই সফলতা। এমন ও হতে পারতো আমি পারফর্ম করছি এবং মাত্র ১০ জন দর্শক উপস্থিত হলো, সেটাও আমার জন্য একপ্রকারের সফলতা কারণ আমি নিজের জন্য কাজ করছি। তাই (সফলতা) আমার কাছে সংগা হলো কতজন দর্শক উপস্থিত হলো বা কত টাকা আমি কামালাম সেটা নয়, সফলতার সংগা হলো তুমি যেই কাজটা করছো সেটা করে তুমি সুখী কি না। 

নাজমুস সাকিব: তো আপনি তো একজন কানাডিয়ান ইন্ডিয়ান 

রাসেল পিটার্স: আমি এখনো তাই ই আছি 

নাজমুস সাকিব: এবং আপনি এখনো তাই ই আছেন। কিন্তু আমি শুনতে পেয়েছি আপনি ক্যালিফর্নিয়া এবং লস ভেগাসেও বসত গড়েছেন। আপনার উদ্দেশ্য কি?

 রাসেল পিটার্স: আমি ১৪ বছর যাবৎ আমেরিকাতে বসবাস করছি ! নাজমুস সাকিব:ওহ! 
রাসেল পিটার্স: হা, এটা হাস্যকর অনেকেই জানে না যে আমি ১৪ বছর যাবৎ আমেরিকাতে বসবাস করছি।


নাজমুস সাকিব:তো আমি একজন বাংলাদেশী সাংবাদিক 

রাসেল পিটার্স: কি? 

নাজমুস সাকিব: আপনি কি কখনো বাংলাদেশ সম্পর্কে শুনেছিলেন? 

রাসেল পিটার্স: না আমি কখনো শুনি নি, বাংলাদেশ কোথায়? আমি মজা করছি, অবশ্যই আমি বাংলাদেশ সম্পর্কে শুনেছি, আমার মা কলকাতার, তোমরা আমাদের ভাষায় কথা বলো! 

নাজমুস সাকিব: আমার দাদা দাদিও কলকাতার 

রাসেল পিটার্স: দেখো, এখন তুমি তাহলে বুঝতে পারছো আমি কি বলতে চাচ্ছি। তো, এটা সম্ভবত একটি অংশ যেটা ভেঙে গিয়েছে, অনেকটাই শ্রীলংকার মতো ভেঙে সাঁতরে অন্য পারে চলে গেছে যেমন, বাংলাদেশ ও তেমন ভাবে ভেঙে সাঁতরে অন্য দিকে চলে গেছে।

 নাজমুস সাকিব: বাংলাদেশের স্ট্যান্ড আপ কমেডি অঙ্গন ক্রমশ জনপ্রিয় হয়ে উঠছেরাসেল পিটার্স: তাই নাকি? নাজমুস সাকিব: জি, তো আপনাকে যদি ভবিষ্যতে বাংলাদেশে পারফর্ম করার আমন্ত্রণ জানানো হয়, আপনি কি পারফর্ম করতে যাবেন?

রাসেল পিটার্স: আমি সবসময় যেকোনো স্থানে পারফর্ম করতে তৈরী আছি, আপনি একটি জায়গার নাম বলুন এবং আমি অবশ্যই যাবো সেখানে। 

নাজমুস সাকিব: কিছু বছর পূর্বে  একটি বিতর্ক তৈরী হয়েছিল  আপনি ডেইলি শো উপস্থাপক ট্রেভর নোয়াকে আপনার জোকস চুরি করার অভিযোগ করেছিলেন। ট্রেভর এর সাথে আপনার বর্তমান সম্পর্ক কেমন?

 রাসেল পিটার্স: ওহ, আমি এধরণের বিষয় নিয়ে আসলে ভাবি না। আপনাকে সামনে এগিয়ে যেতে হবে। আপনি একজায়গায় স্থির থাকেন না, আপনি চলমান থাকেন 

নাজমুস সাকিব: তাহলে আপনাদের দুজনার সম্পর্ক ঠিক আছে?

রাসেল পিটার্স: আমি এটা নিয়ে ভাবি না।ভাবার সময় নেই আমার। 

নাজমুস সাকিব: এবং আপনি শুরু করেছিলেন একটি নেটফ্লিক্স স্পেশাল দিয়ে যেটা ২০১৩ তে প্রচার হয়, দি নোটোরিয়াস নামের সেই স্পেশাল টি বিশাল একটি ব্যাপার ছিল কারণ আপনার পূর্বে আর কোনো কমেডিয়ান এমন কিছু করে নি। এবং এখন আপনার আগামী স্পেশাল আমাজন প্রাইম এ মুক্তি পেতে যাচ্ছে, এবং এর নাম ডিপোর্টেড, তো আপনি কি ডিপোর্টেড সম্পর্কে আমাদের কিছু বলবেন, অর্থাৎ আমরা এটা থেকে কি আশা করতে পারি?

রাসেল পিটার্স: আমি জানি না আপনি কি আশা করেন, কিন্তু আপনি যদি কমেডি আশা করেন, তাহলে আপনাকে হাসার আশা করা উচিত। এটাই আসলে একমাত্র বিষয়

 নাজমুস সাকিব: আপনি কি আমাদের এর মেটেরিয়াল সম্পর্কে কিছু বলবেন?

 রাসেল পিটার্স: না। আমি বলতে চাচ্ছি আপনার টিভিতে আপনি সেটা চান না। আমি ইন্ডিয়া তে এটা ধারণ করেছিলাম। এটা বোম্বেতে ধারণ হয়েছিল গত বছর জুন মাসে। তো এটা আসলে আমার পক্ষ থেকে, আমার পক্ষ থেকে ভারতের জনগণের প্রতি একটি প্রেমময় চিঠি যার মানে হলো, দেখো, আমি জানি গত তিরিশ বছর ইন্ডিয়ান হিসেবে আমি অনেক জোকস করেছি, আমাদের সংস্কৃতি এবং অন্যান্য বিষয় নিয়ে, কিন্তু আমি তাদের সবাইকে জানাতে চাই যে সেগুলো সবই করা হয়েছে আমার ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশ হিসেবে, এবং একারণেই আমি আমাকে স্পেশাল ‘স্পেশাল’ সেখানে করেছি, কারণ ভারত আমার কাছে স্পেশাল এবং আমি তাদের জানাতে চাই আমার হৃদয় সেখানে নিহিত আছে 

নাজমুস সাকিব: অনেকের ধারণা ডোনাল্ড ট্রাম্প রাজনৈতিক অঙ্গনের সবচেয়ে বড় জোক এবং অনেক কমেডিয়ান বেঁচে আছে ট্রাম্পের উপর জোক করে কারণ ট্রাম্প তাদের অনেক মেটেরিয়াল দিচ্ছে।

রাসেল পিটার্স: ঠিক 


নাজমুস সাকিব: কিন্তু আমি আপনাকে দেখি না ডোনাল্ড ট্রাম্প বা রাজনৈতিক বিষয়নিয়ে খুব বেশি জোক করতে। আপনি কি সচেতনভাবেই রাজনৈতিক বিষয় এড়িয়ে চলেন?

 রাসেল পিটার্স: আসলে শুরুতেই বলতে চাই আমি অতো বেশি রাজনীতি বুঝি না। তাই আমার পক্ষে এবিষয়ে কিছু বলা একদম বৃথা এবং আপনি রাজনীতি নিয়ে জোকস প্রতি রাতে প্রত্যেক লেট কমেডি শোতে বিনামূল্য শুনতে পাবেন।  তাহলে আপনি পয়সা খরচ করে কেন আমাকে এমন কিছু করতে দেখতে আসবেন যেটা অন্যরা যা করছে তাদের মতো অতো ভালো নয়?


নাজমুস সাকিব: কিন্তু আপনি নিশ্চই অবগত আছেন বর্তমানে ভারতে একটি বিতর্ক চলছে ‘সিটিজেনশিপ এমেন্ডমেন্ট বিল” নিয়ে। আপনি ভারতের সাথে ঐতিহাসিকভাবে জড়িত কারণ আপনার বাবা মা ভারতীয়। তো এই বিষয়ে আপনার মন্তব্য কি? 


রাসেল পিটার্স: আমি সত্যি জানি না ওখানে এখন কি ঘটছে। কারণ, আমি রাজনৈতিক ভাবাদর্শের মানুষ নই এবং আমি জানি না কেন এমন ঘটছে সেখানে। ক্ষমতার এক উদ্ভট দাপট আমাদের চারিপাশে এখন চলছে এবং অধিক শক্তির পরাশক্তিরা পাগলের মতো আচরণ করছে। তাই, এটা আসলে কোনো একটি নির্দিষ্ট দেশের ক্ষেত্রেই এখন প্রযোজ্য নয়, এবং এমনই এক বাস্তবতার পৃথিবীতে আমরা ইদানিং বাস করছি যেখানে অনেক খেপাটে পাগলরা রাষ্ট্রক্ষমতার সর্বোচ্চে বসে আছে। তারা যা করছে এর সাথে জনগণের ভালোর সাথে সম্পর্ক নেই। এতে শুধুই তাদের নিজেদের ব্যক্তিস্বার্থ জড়িত। এবং আমার এই কথা বর্তমানের যেকোনো দেশের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য। 


নাজমুস সাকিব: আপনার সাবেক বান্ধবী সানি লিওন একটি সাক্ষাৎকারে হিন্দুস্তান টাইমস কে বলেছে আপনার সাথে সম্পর্কে জড়ানো ভুল ছিল। এব্যাপারে আপনার মন্তব্য কি? 


রাসেল পিটার্স: আমি মনে করি, প্রথমত আমি মনে করি আমি জানি ও কি বুঝিয়েছে, ও বুঝায় নাই আমি ওর ভুল ছিলাম। ও বুঝিয়েছে আমরা দুজন দুজনার খুব ভালো বন্ধু ছিলাম প্রেমের সম্পর্কে জড়ানোর আগে। এবং আমি মনে করি ভুলটা আসলে ছিল বন্ধুত্বটাকে প্রেমে রূপান্তর করা। আমি বলতে চাই আমরা আর কখনোই বন্ধু হবো না। তাই এটা নিয়ে আমার ভাবার অবকাশ নেই। এটা অনেক বছর আগের ঘটনা। আমরা প্রায় ১২ বছর আগে সম্পর্কে ছিলাম। এর পর ও বিয়ে করেছে, ওর বাচ্চা আছে, আমি বিয়ে করেছি, আমার দুটি সন্তান আছে। আমার চিন্তা করা মানায় না সাবেক বান্ধবীরা কি বললো বা কি করলো এসব নিয়ে। কারণ আমার জীবনের সাথে এগুলোর কোনো সম্পর্ক নেই এখন।

 
নাজমুস সাকিব: কিন্তু আপনি জানেন কি তিনি এখন অনেক বড় সুপারস্টার ভারতে। তার জনপ্রিয়তা ছাড়িয়ে গেছে পাকিস্তান এমনকি বাংলাদেশেও। তার অনেক ভক্ত আছে। তার সফলতা আপনার কেমন লাগে? 

রাসেল পিটার্স: আমি বলবো এটা খুব ভালো। আমি কখনোই কোনো মানুষের খারাপ হোক সেটা চাইবো না। এবং তাদের যদি কোনো ভালো কিছু ঘটে, এবং সেটা যদি এমন বিশাল মাত্রায় ঘটে তাহলে আরো বেশি ভালো। আমি সব সময় খুশি মানুষকে খুশি দেখলে বা জিতলে দেখলে। আমি সব সময় চাই জয়, জয় এবং জয়, অন্য কিছু নয়, হা হা হা । 


নাজমুস সাকিব: আমি এটা শেষ করতে চাই, আপনাকে একটি প্রশ্ন জিজ্ঞেসের মাধ্যমে, জাতি এবং সংস্কৃতি আপনার পারফর্মেন্স এর উল্লেখযোগ্য থিম, এটা খুবই বিতর্কিত বিষয় কারণ  আপনি নিশ্চই অবগত আছেন যে কিছু মানুষ আছেন যারা জানেন না জাতি কি, জাতীয়তাবাদ কি, বর্ণবিদ্বেষ কি, বর্ণবিদ্বেষকারী কি ইত্যাদি। অনেকেই এইসব ব্যাপারে অজ্ঞত বটে।  এবং কিছু কিছু সময় অনেকের অনুভূতিতে আঘাত লাগার সম্ভাবনাও থাকে। আপনি এই বিষয়টা কিভাবে মোকাবেলা করেন? 

রাসেল পিটার্স: কারো অনুভূতিতে আঘাত লাগলে সেটা মোকাবেলা করা আমার কাজ না। কারণ আমি মনে করি না কারো লাগে। আপনি যদি কোনো একটি বিষয় নিয়ে আঘাতপ্রাপ্ত হতে চান মানুষিকভাবে, সেটা আপনার নিজের মানুষিকতারই পরিচয় বহন করে, যতটা না আমার মানুষিকতার। কিছু লোক আছে যারা আঘাত পেতে অপেক্ষায় থাকে। আপনি যদি আমার শো দেখে থাকেন এবং আপনি যদি আমার চোখের দিকে তাকান, আমার কণ্ঠের স্বর অনুধাবন করেন, তাহলে আপনি জানবেন যে আমি যা কিছুই আপনার উদ্দেশ্যে বলছি পুরোটাই মজা করার উদ্দেশ্যেই বলছি। আমরা এটা করছি কারণ আমরা চেষ্টা করছি সবাই মিলে একসাথে হাসার জন্য, একে অপরকে নিয়ে হাসার জন্য।এবং আল্টিমেটলি আমার চেষ্টা থাকে একে অপরের পার্থক্য ধরানোর পাশাপাশি একে অন্যের মাঝে যে মিলগুলো আছে সেগুলো তুলে ধরা।কারণ প্রত্যেকেই মনে করে তারাই শুধু এমনটি করে, কিন্তু শেষমেশ আমরা অনুধাবন করি আমরা প্রায় সবাই একই রকমভাবে একই কাজ করে থাকি।

নাজমুস সাকিব: তো আপনার বয়স এখন ৫০ বছর, ১০ বছর পর নিজেকে কোথায় দেখতে চান?

রাসেল পিটার্স: ৬০ বছরে

 নাজমুস সাকিব: ৬০ বছর? 

রাসেল পিটার্স: হা, ১০ বছর পর আমি আমাকে ৬০ বছরে দেখতে চাই! হা হা হা ! 

নাজমুস সাকিব: তাহলে কোনো ভবিষ্যত পরিকল্পনা নাই? স্ট্যান্ড আপ কমেডি কে কোথায় নিতে চান বা নেক্সট লেভেল 

রাসেল পিটার্স: আমার জন্য নেক্সট লেভেল কি হতে পারে? 

নাজমুস সাকিব: আপনি সব সময় অন্যদের জন্য নতুন রাস্তা খুলছেন, 


রাসেল পিটার্স: হা, আমি জানি না আসলে কি ঘটবে।আমি সব সময়ই বর্তমানের সাথে চলি, দেখতে থাকি যা ঘটতে থাকে।আপনি যদি এইভাবে স্থির করেন যে কোনো একটি নির্দিষ্ট সময়ের ভিতর আপনি এই এই কাজগুলো করবেন, দেখতে পাবেন তাহলে বেশির ভাগ সময়ই আপনি আপনাকে হতাশ করছেন।আপনি জানেন আমি ইতিমধ্যে অনেক এগিয়ে আছি এবং আমার যেখানে থাকার কথা ছিল বা আমার যা পাওয়ার ছিল জীবনে তার চেয়ে অনেক বেশি পেয়েছি।তাই এখন যা কিছু ঘটছে তা অনেকটাই সোনায় সোহাগা।

নাজমুস সাকিব: তো পরিশেষে আপনি যদি আমাদের দর্শকদের জন্য কিছু বলেন, বাংলাদেশের মানুষের জন্য কিছু বলেন 

রাসেল পিটার্স: ভালোবাসি হা হা হা 

নাজমুস সাকিব: আপনাকে অনেক ধন্যবাদ, এটা অনেক আনন্দ লাগলো আপনার সাথে কথা বলার সুযোগ পেয়ে 

রাসেল পিটার্স: ধন্যবাদ আপনাকেও 

Sharing is caring!