না খেলেই বিদেশ যাচ্ছেন সাকিব !

পরিবারের সান্নিধ্য পাওয়ার জন্য আর বুঝি তর সইছে না সাকিব আল হাসানের। যে কারণে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের (ডিপিএল) খেলা ফেলেই যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমানোর সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছেন মোহামেডান অধিনায়ক। দুই কন্যা আর এক পুত্রকে নিয়ে সাকিবপত্নী উম্মে আহমেদ শিশির এখন সেখানেই অবস্থান করছেন।

ডিপিএলের গত তিন ম্যাচ মাঠে নামতে পারেননি সাকিব। গত শুক্রবার চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী আবাহনীর বিপক্ষে ম্যাচে অখেলোয়াড়সুলভ আচরণ করে এই ম্যাচগুলোতে নিষিদ্ধ ছিলেন তিনি। বাজে আম্পারিংয়ের প্রতিবাদে মাঠে মোহামেডান অধিনায়কের অমন অভব্য আচরণের পরই ধারণা করা হয়েছিল- যুক্তরাষ্ট্রে পরিবারের কাছে যেতেই এমনটা করছেন তিনি। এখন সেই ধারণাই সত্যি হতে চলেছে। মোহামেডান ক্লাব সূত্রে জানা গেছে, সুপার লিগে খেলবেন না সাকিব, যুক্তরাষ্ট্রে পরিবারের কাছে চলে যাবেন। নিশ্চিত করে কিছু জানা না গেলেও ধারণা করা হচ্ছে, আগামী দুয়েকদিনের মধ্যেই দেশ ছাড়বেন এই অলরাউন্ডার।



লিগ শুরু হওয়ার আগ থেকেই শোনা যাচ্ছিল, সাকিব লিগের পুরোটায় খেলবেন না, মোহামেডান ক্লাবের সঙ্গে তিনি কেবল প্রথমপর্বে খেলার জন্যই চুক্তিবদ্ধ হয়েছিলেন। ক্লাব কর্মকর্তারা অবশ্য বারবারই ‘কিছু জানি না’ বলে বিষয়টা এড়িয়ে গেছেন। তবে মোহামেডানের ক্রিকেট কমিটির প্রধান মাসুদুজ্জামান একটা আভাস দিয়ে রেখেছিলেন এই বলে, ‘ও (সাকিব) একটু অস্থির আছে, ফ্যামিলিকে মিস করছে। আমাদের বুঝতে হবে। একটা লোক যদি মানসিকভাবে অস্বস্তিতে থাকে তার কাছে আপনি ভালো পারফরম্যান্স আশা করতে পারেন না।’

সাকিবের সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স এমনিতেও ভালো নয়। বোলিংয়ে কিছুটা সাফল্য পেলেও ব্যাটিংয়ে ব্যর্থ হচ্ছেন প্রতি ম্যাচেই। জাতীয় দলের লাল-সবুজ জার্সিতে নিষ্প্রভ থাকার পর চলমান ডিপিএলে মোহামেডানের হয়ে যে সাতটি ম্যাচ এই বাঁহাতি খেলেছেন, তাতে তার সংগ্রহ মোটে ১১০ রান। সর্বোচ্চ ৩৭। পক্ষান্তরে উইকেট নিয়েছেন ৮টি। আজ প্রথম পর্বে নিজেদের শেষ ম্যাচে গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্সের মুখোমুখি হবে মোহামেডান। নিষেধাজ্ঞা শেষ হয়ে যাওয়ায় এই ম্যাচে ফিরতে পারবেন সাকিব।
তবে একটু সমস্যা আছে। নিষেধাজ্ঞার শাস্তি পাওয়ার পর জৈব-সুরক্ষা বলয় ছেড়ে গিয়েছিলেন সাকিব। তাই প্রটোকল মেনে পুনরায় টিম হোটেলে ফিরতে হবে সময়ের অন্যতম সেরা এই অলরাউন্ডারকে। সেই প্রক্রিয়া ইতোমধ্যে শুরুও করে দিয়েছেন তিনি : প্রথম করোনা টেস্টে হয়েছেন নেগেটিভ এবং বুধবার নমুনা দিয়েছেন দ্বিতীয় পরীক্ষার জন্য। ক্রিকেট কমিটি অব ঢাকা মেট্রোপলিসের নিয়ম অনুযায়ী পর পর দুই টেস্টে নেগেটিভ হলে জৈব-সুরক্ষা বলয়ে প্রবেশ করতে পারবেন মোহামেডান অধিনায়ক।

তবে জানা গেছে, প্রক্রিয়া সেরে ছাড়পত্র পেলেও আজ খেলবেন না সাকিব। তাকে ছাড়াই লিগের বাকি অংশে খেলবে মোহামেডান। এখন প্রশ্ন হচ্ছে- লিগের গুরুত্বপূর্ণ অংশে কেন দলের প্রাণভোমরাকে ছেড়ে দিচ্ছে? এর কারণ হচ্ছে, সামনেই জাতীয় দলের ব্যস্ত সূচি। লিগ শেষেই জিম্বাবুয়ে সফর রয়েছে, এরপর ঘরের মাঠে অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড আর ইংল্যান্ডের বিপক্ষে খেলবে টাইগাররা। প্রস্তুতি নেবে অক্টোবর-নভেম্বরে হতে যাওয়া টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের জন্য।

সবগুলো সিরিজেই তাই সাকিবকে দলে চায় বিসিবি। সে কারণে পিএসএল, সিপিএল আর আইপিএলের বাকি অংশে খেলার জন্য তাকে ছাড়পত্র দেওয়া হয়নি। সব মিলে জাতীয় দলের হয়ে দায়িত্ব পালন করতে লম্বা সময় পরিবারের থেকে দূরে থাকতে হবে সাকিবকে। সে কারণেই লিগের বাকি অংশে না খেলার সিদ্ধান্ত নিয়ে চলে যাচ্ছেন পরিবারের কাছে। তার মন যে সেখানেই পড়ে আছে! প্রায় তিন মাস স্ত্রী আর তিন সন্তানের থেকে দূরে আছেন তিনি।

২২ মার্চ রাতে যুক্তরাষ্ট্র থেকে দেশে ফেরেন সাকিব। পরদিন তার দেখা মিলে মিরপুরে শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে। হোম অব ক্রিকেটে তাকে অনুশীলনে পেয়ে তখন বুঝতে বাকি ছিল না, আইপিএল খেলতে ফেরা তার। আপাতত থমকে থাকা (করোনা আতঙ্কে) ভারতীয় টি-টোয়েন্টি লিগ, বাংলাদেশের শ্রীলঙ্কা সফর এবং চলমান ডিপিএলের কারণে পরিবার থেকে দূরে থাকতে হয়েছে তাকে।

Sharing is caring!