মন্তব্য প্রতিবেদন: কণ্ঠশিল্পী আকবরের অসুস্থতা পুঁজি করে কেন এই অনলাইন বাণিজ্য?

লিখেছেন নাজমুস সাকিব

কণ্ঠশিল্পী আকবর

জনপ্রিয় ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ইত্যাদি খ্যাত কণ্ঠশিল্পী আকবর বেশ কিছুদিন ধরে শারীরিকভাবে গুরুতর অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। ডায়াবেটিস এবং কিডনি জটিলতায় জীবন সায়াহ্নে পৌঁছিয়ে যাওয়া এই শিল্পী ঠিকমতো কথাও বলতে পারছেন না এবং প্রায়শই মূর্ছা যাচ্ছেন। আকবর যখন ক্যারিয়ার এর তুঙ্গে ছিলেন তখন সংবাদপত্র বিশেষ করে টিভি মিডিয়াগুলোর অনেকেই দায়িত্বশীল আচরণ পালন করেনি। একটা সময় গুজব রটেছিল আকবর নাকি চিত্রনায়িকা পূর্ণিমাকে বিয়ের প্রস্তাব দিয়েছিলেন ! সেই সময় কিছু মিডিয়া এইসব গুজবকে আরো উস্কে দিয়ে বাণিজ্য করেছিল অথচ এই সংবাদটি যে একটা ভুয়া এবং ভিত্তিহীন সংবাদ ছিল সেটা কয়টি মিডিয়াতে এসেছিলো? এখনো সেই একই চিত্র লক্ষ্য করা যাচ্ছে।

যে সময়ে আকবরের মিডিয়া কাভারেজ পাওয়ার কথা ছিল, যে সময় টিভি চ্যানেলগুলোর আমন্ত্রিত অতিথি হয়ে তার নিয়মিত গান করার কথা ছিল, সে সময় এক হানিফ সংকেত এবং ইত্যাদি ছাড়া আকবরের পাশে আর কেউ তো দাঁড়াননি। তাহলে এখন যখন আকবর অসুস্থ হলো তখন এসব চ্যানেল এবং পত্রপত্রিকার কেন এত মায়াকান্না ? তবে কি ধরে নিবো পুরোটাই কাটতি বাড়ানো অথবা অনলাইন এ ভিউস পাওয়ার অসুস্থ প্রতিযোগিতা?

গতকাল চ্যানেল আই এর অনলাইন ভার্সন এ আকবরের অসুস্থতার সংবাদটি বেশ দৃষ্টিকটুভাবে উপস্থাপিত হয়েছে। চ্যানেল আই এর মালিকপক্ষের কেউ যদি এরকম অসুস্থ অবস্থায় থাকতো তাহলে তাকে কি এভাবে দৃষ্টিকটুভাবে উপস্থাপিত করা হতো? নাকি ধরে নেবো হানিফ সংকেতকে ব্যক্তিগত আক্রমণের নগ্ন প্রয়াস হিসেবে এরকম একটা বাজে ভিডিও প্রতিবেদন করা হয়েছে? সেই ভিডিওটির কমেন্টস সেকশন এ কেউ কেউ না জেনে প্রশ্ন তুলেছেন হানিফ সংকেত থাকতে আকবরের এমন পরিণতি হলো কি করে? আসলে সেসব দর্শককে আমি এই অজ্ঞতার জন্য দায়ী করবো না কারণ সেই প্রতিবেদনটিই উদ্দেশ্যমূলকভাবে এমনভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে যাতে মনে হওয়া স্বাভাবিক আকবরের এমন দুর্দিনে তার মিডিয়াতে যার মাধ্যমে জন্ম হয়েছে সেই হানিফ সংকেত হয়তো পাশে নেই !

অথচ একটি প্রকৃত সাংবাদিকের কাজ হলো পাঠকের মনে জেগে উঠতে পারা সম্ভাব্য প্রশ্নগুলোর উত্তর খোঁজা। কিন্তু চ্যানেল আই এর সেই রিপোর্টটি উত্তর খোঁজা তো দূরের কথা বরং পাঠকের মনে নতুন করে প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে আকবরের অসুস্থতায় হানিফ সংকেতের ভূমিকা নিয়ে।

আকবরের অসুস্থতার পর তাকে হাসপাতালে ভর্তি করেছেন ইত্যাদির জনক এবং সর্বজন শ্রদ্ধেয় মিডিয়া ব্যক্তিত্ব হানিফ সংকেত যা আকবরের স্ত্রী নিজেও স্বীকার করেছেন কয়েকটি সংবাদমাধ্যমে যা চ্যানেল আই সুকৌশলে এড়িয়ে গিয়েছে। তাছাড়া আকবরের চিকিৎসায় সহায়তার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বরাবর আবেদন করে অর্থ সাহায্য প্রাপ্তিতেও হানিফ সংকেত নিজে থেকে ভূমিকা রেখেছেন। তাছাড়া ইত্যাদির একটি টীম নিয়মিত আকবরের শারীরিক অসুস্থতার পর থেকেই সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখছে এবং নানাভাবে সাহায্য সহযোগিতা করছে। প্রচার বিমুখ হানিফ সংকেত কখনোই এসব কথা মিডিয়াতে প্রকাশ করে নিজের গুণগান জাহির করার প্রয়াস দেখান না বলেই এ বিষয়গুলো সর্বসাধারণের অজানা থাকতে পারে। কিন্তু একজন প্রকৃত সাংবাদিকের কাজ হলো এ বিষয়গুলো জনসাধারণের জন্য তুলে আনা। অথচ চ্যানেল আই যে কাজটি করলো সেটি অপসাংবাদিকতার একটি উদাহরণ হয়ে থাকলো।

হয়তো চ্যানেল আই কতৃপক্ষ হানিফ সংকেতের জনপ্রিয়তায় ভীত। হয়তো তারা এমন কোনো একটি সুযোগের অপেক্ষায় ছিল যাতে হানিফ সংকেতকে হেয় প্রতিপন্ন করা যায়। কিন্তু বাংলাদেশের একটি শীর্ষস্থানীয় চ্যানেলের কাছ থেকে এমন একটি দায়িত্বহীন আচরণ অপ্রত্যাশিত। শিল্পী আকবরের অসুস্থতা পুঁজি করে চ্যানেল আই এর এই মায়াকান্না দেখে তাই প্রশ্ন জাগে আকবর যখন সুস্থ ছিল তখন কেন তাদের অনুষ্ঠানে তাকে কখনো আমন্ত্রিত করা হলো না? অনলাইন এ ভাইরাল হবার এই অসুস্থ প্রতিযোগিতা বন্ধ করে চ্যানেল আই এর উচিত অবিলম্বে সেই বিতর্কিত ভিডিওটি প্রত্যাহার করা এবং একজন অসুস্থ শিল্পীকে এভাবে বাজেভাবে উপস্থাপনের জন্য দেশ ও জাতি এবং সর্বোপরি হানিফ সংকেতের কাছে ক্ষমা চাওয়া।

লেখক: বার্তাপ্রধান, নাগরিক টেলিভিশন। যেকোনো মন্তব্যের জন্য যোগাযোগ করুন : saquib@nagoriktv.com

Sharing is caring!