যুক্তরাষ্ট্রের কাছে জবাব চাইবে বাংলাদেশ

মানবাধিকার নিয়ে মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের প্রতিবেদনে ‘ভুল তথ্যের’ ব্যাখ্যা চাইবে বাংলাদেশ। বিকেলে এ কথা জানিয়েছেন, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ দমনে র‍্যাবের কার্যক্রমের প্রশংসা করেন তিনি। জাতীয় নির্বাচন ইস্যুতে বলেন, গেলো দুটি নির্বাচনে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করেনি অনেক দল।

সম্প্রতি বাংলাদেশসহ বিশ্বের ১৯৮টি দেশ ও অঞ্চলের মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে তথ্য প্রকাশ করে মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর। যেখানে বাংলাদেশের জাতীয় নির্বাচন, নিরাপত্তা বাহিনীসহ বিভিন্ন ইস্যুতে মূল্যায়ন তুলে ধরা হয়।

রোববার বিকেলে এ নিয়ে আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া জানালো পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। প্রতিমন্ত্রী বলেন, প্রতিবেদনে ভুল তথ্য রয়েছে এর ব্যাখ্যা চাওয়া হবে। প্রতিবেদনের অনেক বিষয়ই ধর্মীয় মূল্যবোধ, সমাজ-সংস্কৃতির সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ নয়।

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেন, বাংলাদেশের বাস্তবতা থেকে যোজন যোজন পথ দূরের বিষয়বস্তুগুলো আছে। যেগুলো আমরা আউট রাইট রিজেক্ট করছি। যেগুলো বাংলাদেশ কখনোই এন্টারটেইন করতে পারবে না। বিশেষ করে সমকামিদের অধিকারের বিষয়ে যেগুলো বলা হয়েছে। আমরা যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে প্রতিটি বিষয় নিয়ে কথা বলবো। কারণ এতে তাদের গ্রহণযোগ্যতা অন্যান্য ক্ষেত্রে ঝুঁকির মধ্যে পড়ে যেতে পারে।

প্রতিমন্ত্রী কথা বলেন, গেল দুটি জাতীয় নির্বাচনকে প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক করতে অনেক রাজনৈতিক দল দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করেনি।

সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ দমন করে শান্তি ও ন্যায় বিচার নিশ্চিতে র‍্যাব বলিষ্ঠ ভূমিকা রাখছে বলেও মনে করেন প্রতিমন্ত্রী।

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেন, র‌্যাব ইজ এ ব্র্যান্ড নেইম ফর পিস, র‌্যাব ইজ এ ব্র্যান্ড নেইম হোয়ার উইল গেট জাস্টিজ। আমাদের এই প্রতিষ্ঠানগুলোকে দুর্বল করে দেয়ার কোনো অপচেষ্টাই আমরা কিন্তু ভালোভাবে নিতে পারবো না।

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর দাবি, এ প্রতিবেদন সত্ত্বেও দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক সুদৃঢ় হয়েছে, বেড়েছে বাণিজ্যিক সম্পর্ক। তিনি বলেন, গত বছরের তুলনায় এ বছরে যুক্তরাষ্ট্রের রপ্তানি ৫০ শতাংশের উপরে বেড়েছে।

Sharing is caring!